রবিবার, ৫ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩রা সফর, ১৪৪২ হিজরি

মাদরাসায় গিয়ে হাফেজ শিশুদের সঙ্গে খেলায় মেতে উঠলেন ক্রিকেটার শাহরিয়ার নাফিস

দুপুরের সময়টা বরাদ্দ থাকে ঘুমের জন্য। কিন্তু আজ দুপুরে যথেষ্ট হইচই মাদরাসায়। ছেলেরা ছুটোছুটি করছে। সিঁড়ি দিয়ে সমানে নিচে নামছে তারা। ভ্রু কুঁচকে দাঁড়িয়ে রইলাম। হচ্ছে কি ব্যাপারটা!

খানিক বাদেই দেখি গেঞ্জি ও কালো প্যান্ট পরা একজন সিঁড়ি বেয়ে উপরে উঠছেন। হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালার মতো পেছনে ছুটছে ছোট-বড়-মাঝারি নানা বয়সী ছাত্র। আমার সামনে দিয়ে অতিক্রমের সময় লম্বা করে একটি সালামও দিলেন। তিনি পাঁচ তলায় উঠে গেলেন পিছনে ছেলেদের দলবল নিয়ে।

একটু পর আমার মনে হলো, আমি কি শাহরিয়ার নাফিসকে দেখলাম?  ছেলেদের পিছু পিছু চারতলা থেকে নিজেও পাঁচতলায় উঠলাম। দেখা গেল ঘটনা সত্যি। সেই লোকটি শাহরিয়ার নাফিস, এখন দলে অনিয়মিত হলেও তিনি জাতীয় ক্রিকেট দলের জার্সি গায়ে লম্বা সময় বাংলাদেশের হয়ে মাঠে খেলেছেন। বিপিএল সহ শীর্ষ লীগগুলোতে এখনো তিনি বেশ জনপ্রিয়।

ততক্ষণে পাঁচতলায় হিফজ বিভাগের হলরুমে হইচই পড়ে গিয়েছে। বাচ্চারা চারদিক থেকে তাকে ঘিরে আছে। তিনি দাঁড়িয়ে এটা -সেটা জিজ্ঞেস করছেন। একসময় বললেন, আপনাদের মধ্যে হাফেজ কয়জন? নয়-দশ বছরের অনেকগুলো ছেলে হাত তুলল। যথেষ্ট অবাক হলেন শাহরিয়ার নাফিস। বললেন, আন্তর্জাতিক অঙ্গনে আমরা দেশের নাম কি আর উজ্জ্বল করেছি! তার চেয়ে বহুগুণ উজ্জ্বল করেছেন আপনারা। পত্রিকায় পড়ি বাংলাদেশের হাফেজ ছেলেরা বিশ্বের শত শত দেশকে পেছনে ফেলে প্রথম স্থান অধিকার করে। এটা অনেক আনন্দের ব্যাপার।

শাহরিয়ার বললেন, কাছেই তিনি একটা অনুষ্ঠানে এসেছিলেন। যাওয়ার পথে মাদরাসা দেখে ক্ষণিকের জন্য থেমেছেন। ছাত্ররা তখন দাবি করে বসল,  তাদের সাথে ক্রিকেট খেলতে হবে তাকে। যেমন করে তিনি বিশ্বের বাঘা বাঘা বোলারদের ছক্কা মেরেছেন তেমনটা আজকে এখানেও করে দেখাতে হবে।

সলাজ মুখে তিনি রাজি হলেন। হাফেজ ছাত্রদের ভিড়ের মধ্যেও বোলিংয়ের জন্য একটু জায়গা খালি করা হলো। ব্যাট হাতে দাঁড়ালেন শাহরিয়ার। মনে হচ্ছিল, শাহরিয়ার নাফিস আসলে তখন মাদরাসার হাফেজ শিশুদের সঙ্গে নিজেকে একাত্ম ক

রার একটা উপলক্ষই যেন হাতে তুলে নিলেন। ছোট ছোট ছেলেরা বল করছিল। কয়েকটি বল সম্ভবত ইচ্ছে করেই তিনি মিস করলেন। তার মিস করা এক -একটা বল পেছনের স্ট্যাম্পে লাগছিল, অমনি বাচ্চারা উল্লাসে ফেটে পড়ছিল‌। এই ছেলেরা বাড়ি গিয়ে বন্ধুদের বলবে, জানিস! শাহরিয়ার নাফিসকে আমি বল করে আউট করে দিয়েছি!!

খেলার পর এবার ছেলেরা ধরলো অটোগ্রাফের জন্য। হাসিমুখে সবার দাবি পূরণ করলেন।

যাবার সময় মুখে চওড়া হাসি নিয়ে আমার দিকে এগিয়ে এলেন। মুসাফাহার জন্য হাত বাড়িয়ে দিয়ে বললেন, কাছেই একটা অনুষ্ঠানে এসেছিলাম। মাদরাসা দেখে ভাবলাম কোরআনের পাখিদের সাথে একটু সময় কাটিয়ে যাই। ভালো লাগলো খুব।

আমাদের মুহতামিম বললেন, মাদরাসার মাঠে একদিন খেলার আয়োজন করব, আপনি কিন্তু আসবেন। মুখে হাসিটা জিইয়ে রেখে তিনি বললেন, একটু আগ থেকে জানাবেন। আমি আসবো ইনশাআল্লাহ। মাদরাসার ছেলেদের সাথে সময় কাটাতে এমনিতেই আমার ভালো লাগে।

শাহরিয়ার নাফিস চলে গেলেন। খুব কাছ থেকে আমি দেখলাম একজন ক্রিকেটারকে, ধর্মীয় চেতনা এবং কোরআনের হাফেজদের প্রতি যিনি হৃদয় গহীনে ভালবাসা লালন করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Archives

September 2020
S S M T W T F
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
2627282930  
shares