সোমবার, ৩রা কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২রা রবিউল আউয়াল, ১৪৪২ হিজরি

বেহায়া তো সেই, যে তার রবকে লজ্জা করেনা – মাওলানা সা’দ

মানুষ প্রকাশ্যে গুনাহ এজন্য করেনা, কারন সে বেহায়া হতে চায়না।
অথচ বেহায়া তো সেই, যে তার রবকে লজ্জা করেনা।–
মাওলানা সা’দ

এক ব্যক্তি পথ চলছে। কাঁটা বিছানো পথ।
দু’ধারে কাঁটার ঝোপ।পথ চলতে চলতে পায়ে কাঁটা বিধে যায়, কাপড় ছিঁড়ে যায় কাঁটায় লেগে। তাকে বার বার থামতে হয়। পা থেকে কাঁটা তোলা, কাপড় থেকে কাঁটা ছাড়ানো- তাকে এগুতে দেয় না। কিন্তু তার পথ চলা থামে না। তাকে তো পৌঁছতে হবে মনজিলে। পা ব্যথা হয়ে যায়, ক্লান্তি শরীরে চেপে বসে। সে চলতে থাকে অবিরাম।
এ যামানায় দ্বীনের উপর চলতে থাকা প্রত্যেক ব্যাক্তির এমনই অবস্থা। ফেতনার পর ফেতনা। সীমালঙ্গনের সমস্ত উপকরণ হাতের কাছেই। মনের লাগামহীন ঘোড়া কেবল অন্যায় আব্দার করেই ব্যস্ত। কিন্তু নিজেকে বাঁচিয়ে রাখার কোন বিকল্প নেই।আর এর যা বিনিময়, তা তো বিশাল।আমাকে বাঁচতে হবে সব জায়গায় আংগুল চালনা থেকে। সবদিকেই যদি আমি উঁকি দিই, তাহলে আমার জন্যে কোন ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট খোলা নেই। কানে বাজে লক্ষ লক্ষ মানুষের সামনে বলা এই সময়ের শায়খ মাওলানা সা’দ এর উক্তি। মানুষ প্রকাশ্যে গুনাহ এজন্য করে না, কারন সে বেহায়া হতে চায় না। অথচ বেহায়া তো সেই, যে তার রবকে লজ্জা করে না। চক্ষুলজ্জার কারনে মানুষের কাছ থেকে তো নিজের আবর্জনাগুলো আড়াল করে রাখে, কিন্তু আল্লাহ তায়ালাকে লজ্জা পায় না। তিনি বলেন, সেই তো বেহায়া। আর যে মানুষের সামনে গুনাহ করে বেড়ায়, সে তো জানোয়ার।
অতএব, নিজেকে বাঁচানোর চেষ্টার কোন বিকল্প নেই। কাঁটাভরা পথে সতর্ক হয়েই আমার চলা লাগবে। আমার রব থেকে পালানোর কোন উপায় নেই।
فإنك تعلم خائنة الاعين وما تخف الصدور
নিশ্চয়ই চোখের লুকোচুরি আর অন্তরের কল্পনা সম্পর্কেও তুমি জ্ঞাত।
নিজেকে একটু একটু করে বাঁচিয়ে রাখব, আমার রব আমাকে কাছে টেনে নেবেন। ইচ্ছার বিরুদ্ধে আমার প্রত্যেক কদম আমাকে মালিকের নিকটবর্তী করবে। আমার অন্তর গুনাহ থেকে বাঁচার কষ্টে ক্ষতবিক্ষত হবে, আর সেই আহত অন্তর লাভ করবে মালিকের নৈকট্য।
عن ابي ثعلبة في قوله تعالي عليكم انفسكم لا يضركم من ضلي اذا اهتديتم فقال اما والله لقد سالت عنها رسول الله صلي الله عليه وسلم فقال بل ائتمروا بالمعروف وتناهوا عن المنكر حتي اذا رئيت شحا مطاعا وهوي متبعا ودنيا مؤثرة واعجاب كل ذي رأي برأيه ورأيت امرا لا بد لك منه فعليك نفسك ودع امر العوام فان ورائكم ايام الصبر فمن صبر فيهن قبض علي الجمر للعامل فيهن اجر خمسين رجلا يعملون مثل عمله قال يا رسول الله اجر خمسين منهم قال اجر خمسين منكم.، رواه الترمذي وابن ماجه.
হজরত আবু ছালাবা রাঃ হতে বর্নিত, তিনি আল্লাহ তায়ালার কালাম- নিজেকে রক্ষা করাই তোমাদের কর্তব্য। যে পথভ্রষ্ট হয়েছে, সে তোমাদের কোন ক্ষতি করতে পারবে না, যখন তোমরা হেদায়াতের উপর অবিচল থাকবে – সম্পর্কে বলেন, শুনো, আল্লাহর কসম, আমি এ আয়াত সম্পর্কে রসুলকে জিগ্যেস করেছি। তিনি বলেছেন, বরং তোমরা ভাল কাজের আদেশ দাও ও অন্যায় হতে নিষেধ কর। অবশেষে যখন দেখবে,
কৃপনতার অনুসরণ হচ্ছে,
প্রবৃত্তির পূজা হচ্ছে,
দুনিয়াকে প্রাধান্য দেয়া হচ্ছে,
প্রত্যেক জ্ঞানী তার জ্ঞানের অহমিকায় মত্ত,
আর এমন অবস্থা দেখবে যাতে জড়িয়ে পড়া ছাড়া তোমার উপায় নেই,
তখন তুমি নিজেকে রক্ষা করে চল।সাধারণকে তাদের অবস্থার উপর ছেড়ে দাও। কেননা, তোমাদের পরবর্তী যুগ ধৈর্য্যের যুগ। এসময় যে ধৈর্য ধারণ করবে, সে যেন জ্বলন্ত কয়লা হাতের মধ্যে রাখল। এ অবস্থায় যে দ্বীনের উপর দৃঢ় থাকবে, সে তার ন্যায় আমলকারীর ৫০ জনের নেকী পাবে। জিগ্যেস করা হল, তাদের মধ্য হতে ৫০ জন? তিনি বললেন, বরং তোমাদের মধ্য হতে ৫০ জনের সমান প্রতিদান পাবে।
( তিরমিযী ও ইবনে মাজাহ)
সুতরাং, ভয় কি বন্ধু, চল পথ চলতে থাকি নির্ভীক সাহসিকতায়। এড়িয়ে চলি সব কন্টক। আমাদের রব সাথেই থাকবেন।

আল্লাহ সবাইকে গোনাহ থেকে সবসময় বেঁচে থাকার তৌফিক দান করুন‌।আমিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Archives

October 2020
S S M T W T F
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930
31  
shares