রবিবার, ২৪শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৫ই শাওয়াল, ১৪৪১ হিজরী

আমি যদি রোহিঙ্গা হতাম !!! ভেবে দেখুন

সুজিত সত্যান্বেষী

ভয় লাগে । মৃত্যুর হাতে হাত রাখার চাইতেও বেশি । মানুষের মৃত্যু আছে একথা আস্তিক-নাস্তিক নির্বিশেষে সবাই বিশ্বাস করে । অথচ মৃত্যুর কাছ থেকে বাঁচার জন্য কত আর্তনাদ মানুষের !

চোখের সামনে ঘটে যায় মৃত্যু । কারো পায়ে গুলির চিহ্ন । এখনও ন্যাংরিয়ে হাটে । একটি টাকাও আমি তাকে সাহায্য করিনি ।

একটি ছেলের বাবা নেই, মা নেই, ভাই নেই, বোন নেই । সারে সাতশত কোটি মানুষের দুনিয়ায় সে একেবারে একা ।
বয়স আমার চেয়েও কম হবে । কাউকে পুড়িয়ে মেরেছে, কাউকে গুলি করেছে ।

মৃত্যুর হাত থেকে বাঁচার জন্য কেউ শেষ চেষ্টা করেও রেহাই পায়নি , ট্রলার ডুবেও মারা গেছে ।
মৃত্যু তাকে ক্ষমা করেনি ।

দিনের পর দিন না খেয়ে আছে অনেকেই । আর ক্ষুধা মেটানোর মত খাবার আছেই বা ক’জনের !

একটা বিরাট ঝড়ের মত ঘটে যাওয়া জীবনগল্পের কি শেষ আছে !

বাড়ি ওরা পুড়িয়ে দিয়েছে । ঘরে সামান্য জীবন বাঁচানোর সামান ছিল । নিয়ে আসি ? আর আসা হয় নি বাবা ও সন্তানের ।

শুনেছি ভাই নাকি পার হয়ে এসেছে । ও আরেক ক্যাম্পে আছে । ওকে খুজতে বের হয়েছে তার ছোট ভাই , বয়স ১০-১৫ হবে হয়তো ।

জীবনের অর্থ তাদের কাছে কী ?
আর মজার মনিটরের সামনে আমাদের সামনে কী ?
একটু ভাবুন ।

ত্রাণ চাইতে আসিনি ।

আপনার কোন সাহায্য আমাদের অথবা রোহিঙ্গাদের কারোই কাম্য হওয়া উচিত নয় ।

আবারো বলছি –
২-১ জনের ভুলে সমস্ত জাতিকে অসম্মানিত করবেন না ।

ওরা অসহায়, ওরা নিরুপায় , ওদের মুখে হাসি নেই ।
অনেক বেশি মায়া আছে,অনেক বেশি ভালবাসা আছে । আর ছোট্ট জীবনে বাঁচার একটু আশা আছে । যদিও কোন ধরণের মানবিকতাতেই তাকে বেঁচে থাকা বলা যায় না !

যারা উখিয়া যান নাই, তারা ভিডিও দেখে, ছবি দেখে অনেক কিছুই ধারণা করে বসে থাকবেন ।

কিন্তু , বিলিভ মি !!!!

আমাকে বিশ্বাস করুন ।

রোহিঙ্গারা বিশ্বের জমিনে আমার প্রত্যক্ষ চোখে দেখা সব চাইতে অসহায় গোষ্ঠী ।

পাহাড় কেটে মাঠ বানিয়ে দিচ্ছে !!!!

এতটা মিথ্যাবাদী হইয়েন না কেউ প্লিজ ।

নিজের কথা একবার চিন্তা করুন ।
আপনার মাকে আপনার সামনে বর্মি আর্মি ও মগরা অসম্মানিত করল, বাবাকে পুড়িয়ে মারল , ভাই -বোনকেও পুড়িয়ে মারল ।

জীবন রক্ষার তাগিদে আপনি কয়েক দিন ধরে না খেয়ে, রোঁদে- বৃষ্টিতে ভিজে ভিজে নদী, শক্ত পথ পার হয়ে ভয়ে ভয়ে অন্য একটি দেশে গেলেন ।

হাতে একটা টাকা নাই , গায়ে চলার শক্তি নাই, থাকার জায়গা নাই ।
পাশাপাশি জীবন হারানোয় ভয়, আত্মীয় – স্বজন হারানোর ভয় তাড়া করে বেড়ায় ।

বাস্তবতা আপনাকে কাঁদায়।

জীবনের ভাষা হারিয়ে ফেলা মানুষগুলোর জায়গায় নিজেকে একটু কল্পনা করে দেখেছেন কখনও?

আরেকবার ভেবে দেখবেন- এটাই আমার অনুরোধ ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Archives

June 2020
S S M T W T F
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
27282930  
shares