• আসসালামুআলাইকুম, আমাদের ওয়েবসাইটে উন্নয়ন মূলক কাজ চলিতেছে, হয়তো আপনাদের ওয়েব সাইটটি ভিজিট করতে সাময়ীক সমস্যা হতে পারে, সাময়ীক অসুবিধার জন্য আমরা আন্তরিক ভাবে দুঃখিত।

শনিবার, ১১ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৯শে জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী

আমার শিক্ষকতা, সুখ দুঃখের সাতকাহন – লাবিব আবদুল্লাহ

মাস্টরি একটি অবহেলিত পেশা৷ শিক্ষকতা সেবা তবে এখন সেবা নয় বাণিজ্য৷ আমি গত তিন মাস থেকে ময়মনসিংহের বাউন্ডারি রোডে যাতায়াত করি৷ এই রোডটি শহরের বাজে একটি রোড৷ গ্রামের কাচা রাস্তা থেকেও খারাপ৷ গ্রামের মেঠো পথ অনেক মস়ৃণ কিন্তু বাউন্ডারি রোডে সাত তলা চৌদ্দ তলা ভবন থাকলেও রাস্তাটিতে পানি জমে থাকে৷ এই রাস্তায় মাস্টরদের হাট৷ কোচিং কত প্রকার কী কী তা সব আছে এই রোডে৷ শিক্ষা যে বাণিজ্য তা দেখতে হলে এক পলক নজর দিলেই দেখা যাবে কত হাটবাজার এই পথে৷

মাস্টররা আর অবহেলিত থাকতে চায় না৷ আদর্শের কথা বলে লাভ কী আদর্শহীন এই সমাজে! কী লাভ নৈতিকাতার কথা কপচিয়ে অনৈতিক এই সমাজে৷ টাকা কামাও এখানে নৈতিক ও নৈতিকতার কিছু নেই!
শিক্ষার নগরী ময়মনসিংহ হলে বাউন্ডারি রোডে শিক্ষা বাণিজ্যের কোনো বাউন্ডারি নেই৷ তবে এই রোড়ে আরবী ভাষার কোনো ব্যবসা নেই৷ চলবেও না আরবীর ব্যবসা৷
অভিভাবকরা বাচ্চাদের সব শিখাবে কিন্তু কুরআনের প্রতি তেমনটা আগ্রহ নেই৷


যাক আমি হলাম মিস্টার নহে মোল্লা৷ খাঁটি মোল্লা৷ সনদ যেহেতু নাই তাহলে সনদহীন মুররখ্য মোল্লা৷ তবে শিক্ষকতার নানা অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে পথ চলছি দীর্ঘ দুই যুগ থেকে৷ আলিয়ার কোচিং, কিন্ডার গার্টেনে শিক্ষকতাসহ কওমী মাদরাসায় দুই যুগের মুদাররিসগিরি করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতা৷ সকল পদে সমাসীন থাকিয়া এখন প্রায় অবসরে৷ তবে আছি শিক্ষা উপদেষ্টা হিসেবে কয়েক জায়গায়৷ পদটি খারাপ না৷
আজ একটি অভিজ্ঞতা বলি৷


এক মসজিদে খতীব ছিলাম৷ সাথে কানকাহ ও মাদরাসা৷ দেখতাম প্রায় প্রতি দুই তিন মাস পর পর শিক্ষক বলদে যায়৷ আমি রহস্য উদঘাটনে পেলাম এক শিক্ষক আরেক শিক্ষকের পেছনে লাগে৷ পেছনে পড়ে৷ পেছনে লেগেই থাকে৷ এই পেছনে পেছনে লাগতে কওমীর কথিত শিক্ষকরা উস্তাদ৷ পেছনে লাগবে ব্যর্থ হলে কমিটির কাছে নালিশ৷ মুহাতামিমের কাছে মিথ্যাচার৷ এরা শিক্ষক বদের খাটি হাড্ডি৷ মুহতামিম নিজেকে মালিক মুখতার মনে করে ফেরাউনি আচরণ করে অন্যায়ভাবে মিথ্যায় প্রভাবিত হয়ে ত্যাগী ও যোগ্য উস্তাযদের বিদায় করে সেই কথিত শিক্ষকের নিরন্তর ওয়াসওসায়৷ কুমন্ত্রনা ও ওয়াসওসার রোগে আক্রান্তদের জয়জয়কার এখন৷ পেছনে লাগার রোগমুক্তি না ঘটলে বিরান হবে কওমী মাদরাসা৷ থাকবে খোলস৷ থাকবে ভবন শুধু আর কিছু স্বপ্নহীন কথিত ছাত্ররা৷ থাকবে ওয়াসওয়ার রোগী ফারও মুতামিম ও সেঅ পেছনে লাগা শয়াতনস্বভাবের রোগী মোলভী৷ কথাগুলো শক্ত করেই বললাম৷ সেই খানকাহ ও মাদরাসা থেকে শিক্ষক বিদায়ের লিস্ট করে পঁচিশ জন বিদায়ী উস্তায পেয়েছি৷


অবশেষে মাদরাসা গোরস্তানে লাশের মতো লম্ব বেল্ডিং । 

লাবিব আবদুল্লাহ

লেখক: পরিচালক, ইবনে খালদুন ইনস্টিটিউট ময়মনসিংহ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

January 2020
S S M T W T F
« Dec    
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031
shares