• আসসালামুআলাইকুম, আমাদের ওয়েবসাইটে উন্নয়ন মূলক কাজ চলিতেছে, হয়তো আপনাদের ওয়েব সাইটটি ভিজিট করতে সাময়ীক সমস্যা হতে পারে, সাময়ীক অসুবিধার জন্য আমরা আন্তরিক ভাবে দুঃখিত।

শুক্রবার, ১০ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৮শে জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী

আকীকা ও কুরবানী প্রসঙ্গে – আল্লামা মিজানুর রহমান সাঈদ

الجواب باسم ملهم الصدق والصواب
প্রথমত-
আকিকা সন্তান জন্মের সপ্তম দিনেই করতে হবে অন্য কোন দিনে করা যাবে না শরীয়তের আলোকে কথাটি সঠিক নয়। বরং পরবর্তী দ্বিতীয় সপ্তম (১৪তম দিন) ও তৃতীয় সপ্তম (২১তম দিন) আকীকা করার কথাও হাদীসে পাওয়া যায়। যেমন-
হাদীস নং ১
হযরত বুরায়দা রা. থেকে বর্ণিত-
عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ بُرَيْدَةَ، عَنْ أَبِيهِ، أَنَّ النَّبِيَّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ: ্রالْعَقِيقَةُ تُذْبَحُ لِسَبْعٍ، أَوْ أَرْبَعَ عَشْرَةَ، أَوْ إِحْدَى عِشْرِينَগ্ধ( المعجم الاوسط:৩/৩৭৮, رقم:৪৮৮২)
অর্থ: হযরত বুরায়দা রা. থেকে বর্ণিত, রাসূল সা. বলেন সন্তান জন্মের সপ্তম দিন আকীকা কর। সপ্তম দিনে সম্ভব না হলে ১৪মত দিন, তাতেও সম্ভব না হলে একুশতম দিন।
উক্ত হাদীসের সনদে যদিও কিছুটা দূর্বলটা রয়েছে, কিন্তু বিষয়টি ফজীলত সংক্রান্ত হওয়ায় এবং সর্বযুগের ইমাম, ফকিহ ও মুহাদ্দিসগণের উক্ত হাদীসের উপর আমল থাকায় ও সহীহ হাদীস এর সমর্থনে থাকায় এবং এর বিপক্ষে শরয়ী কোন দলীল না থাকায় উক্ত উক্ত হাদীসটি আমলের ক্ষেত্রে গ্রহণযোগ্য বিবেচিত।
হাদীস নং ২
আম্মাজান হযরত আয়েশা রা. এ বিষয়ে লম্বা এক হাদীসের শেষাংশে বলেন-
فقالت عائشة رضي الله عنها : لا بل السنة أفضل عن الغلام شاتان مكافئتنان و عن الجارية شاة تقطع جدولا و لا يكسر لها عظم فيأكل و يطعم و يتصدق و ليكن ذاك يوم السابع فإن لم يكن ففي أربعة عشر فإن لم يكن ففي إحدى و عشرين هذا حديث صحيح الإسناد و لم يخرجاه تعليق الذهبي قي التلخيص (المستدرك:৪/২৩৮، رقم:৭৫৯৫)
অর্থ- … বরং আকীকার সুন্নাত হলো সন্তান জন্মের সপ্তম দিনে, সম্ভব না হলে ১৪তম দিনে, তাতেও সম্ভব না হলে একুশতম দিন। ছেলে হলে ২টি, আর মেয়ে হলে ১টি বকরী জবাই করা।
হাকেম রহ. বলেন হাদীসটি সনদের বিচারে সহীহ। সুতরাং উক্ত হাদীসদ্বয়ের মাধ্যমে একুশতম দিন পর্যন্ত আকীকা করার প্রমাণ পাওয়া গেলেও তবে কেউ যদি একুশতম দিনে করতে না পারে তাহলে পরবর্তীতে যেকোন সময় করা যাবে। হাদীসের মর্ম এটাই এবং এব্যাপারেও একাধিক হাদীস পাওয়া যায়। নিম্বে কয়েকটি পেশ করা হলো।
হযরত আনাস রা. থেকে বর্ণিত-
عَنْ أَنَسٍ، أَنَّ النَّبِيَّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ ্রعَقَّ عَنْ نَفْسِهِ بَعْدَ مَا بُعِثَ نَبِيًّا ( المعجم الاوسط:২/২৮৩, رقم:৯৯৪)
অর্থ: আনাস রা. বলেন, রাসূল সা. নবুওয়াত প্রাপ্তির পর নিজেই নিজের পক্ষ থেকে আকীকা করেছিলেন।
অথচ এই আকীকা ৭,১৪,২১ তম দিনে ছিলনা। চল্লিশ বছর পরেই আকীকা করা হয়েছিল। এই মর্মে তাবেয়ীন ও সালাফদের বিভিন্ন আমলও পাওয়া যায়। যেমন-
হযরত হাসান বসরী রা. থেকে বর্ণিত-
عن الحسن البصرى اذا لم يعق عنك فعق عن نفسك وان كيت رجلا (اعلاء السنن:১৬/৭৮২১)
অর্থ- যদি তোমার পক্ষ থেকে আকীকা করা না হয়ে থাকে,তাহলে নিজেই নিজের আকীকা করে নাও। যদিও প্রাপ্ত বয়স্ক হউ না কেন।
ইমাম তিরমীযি রহ. সুনানে তিরমীযিতে-(৩/৫১৩, হা.১৫২২) আকীকার হাদীস বর্ণনার শেষে তার ব্যাখ্যায় বলেন-
আহলে ইলম সকলের নিকটে সন্তান জন্মের সপ্তম দিনে আকীকা করা মুস্তাহাব। তবে সপ্তম দিনে আকীকা করতে না পারলে ১৪তম দিনে করবে, তাতেও সম্ভব না হলে একুশতম দিনে আকীকা করবে।
উপরোক্ত হাদীস সাহাবা ও তাবেয়ীদের ফাতাওয়ার আলোকে প্রমাণ হলো যে, ২১তম দিনে আকীকা করতে না পারলে পরবর্তী যেকোন সময় করলে আকীকার সুন্নাত আদায় হবে।
সুতরাং কেউ যদি সপ্তম দিনের পর কুরবানীর জন্তুর সাথে আকীকা করে তার শরীয়ত সম্মত। রাসূলে কারীম সা. সাহাবা ও তাবেয়ীদের আমল দ্বারা প্রমাণিত। হ্যাঁ, কুরবানীর সাথে আকীকা করার জন্য সপ্তম দিনে আকীকা করার সুযোগ থাকা সত্বেও তা বিলম্ব করা অনুত্তম। এতে কারো দ্বিমত নেই।

দ্বিতীয়ত-
এ দাবীটিও সঠিক নয় যে, আকীকার পশু সংক্রান্ত যত হাদীস এসেছে সবগুলোতেই বকরীর কথা এসেছে। তাই আকীকা শুধু বকরী দিয়েই করতে হবে এটা কোন জরুরী বিষয় না, কারণ রাসূল সা. বকরী দিয়ে আকীকা করা একথার দলীল হয় না যে, শুধু বকরী দিয়েই আকীকা করতে হবে। অন্য কোন পশু দিয়ে করা যাবে না। বরং রাসূল সা. এর হাদীস ও সাহাবায়ে কেরামের আমল দ্বারা প্রমাণ মিলে যে, আকীকা উট, গরু, বকরী ইত্যাদি যেসকল জন্তু দিয়ে কোরবানী করা যায় সেসকল জন্তু দিয়েও আকীকা করা যায়। নিম্বে কয়েকটি দলীল পেশ করা হলো-
হাদীস নং ১
عَنْ أَنَسِ بْنِ مَالِكٍ ، قَالَ : قَالَ رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ : مَنْ وُلِدَ لَهُ غُلامٌ فَلْيَعِقَّ عَنْهُ مِنَ الإِبِلِ أَوِ الْبَقَرِ أَوِ الْغَنَمِ (المعجم الصغير:১/৮৪، رقم شاملة:২২৯)
অর্থ- হযরত আনাস রা. বলেন- নবী করিম সা. ইরশাদ করেন, যার সন্তান ভুমিষ্ট হবে সেযেন সন্তানের পক্ষ থেকে উট, গরু, বকরী যেকোন একটি জবেহ করে আকীকা করে।
উক্ত হাদীস নিযে বিতর্ক থাকলেও ইমাম ইবনে হাজর রহ. এই হাদীসকে দলীল হিসেবে পেশ করেন। (ফাতহুল বারী-১১/৯)
হাদীস নং ২
عَنْ عَمْرِو بْنِ شُعَيْبٍ عَنْ أَبِيهِ أُرَاهُ عَنْ جَدِّهِ قَالَ سُئِلَ رَسُولُ اللَّهِ -صلى الله عليه وسلم- عَنِ الْعَقِيقَةِ فَقَالَ ্র لاَ يُحِبُّ اللَّهُ الْعُقُوقَ. كَأَنَّهُ كَرِهَ الاِسْمَ وَقَالَ ্র مَنْ وُلِدَ لَهُ وَلَدٌ فَأَحَبَّ أَنْ يَنْسُكَ عَنْهُ فَلْيَنْسُكْ عَنِ الْغُلاَمِ شَاتَانِ مُكَافِئَتَانِ وَعَنِ الْجَارِيَةِ شَاةٌ (سنن ابى داود:৩/১২২৯، رقم:২৮৪২)
অর্থ- নবী করিম সা. ইরশাদ করেন, যে ব্যক্তির সন্তান ভূমিষ্ট হয় সে যেন সন্তানের পক্ষ থেকে نْسُك ) ( তথা পশু জবেহ কর। আকীকার ক্ষেত্রে এ হাদীসে নুসুক তথা জন্তু জবাইয়ের কথা দ্বারা বুঝা যায় বকরী আকীকা করা জরুরী না। উট, গরু দিয়েও করা যায়। সাহাবাগণের কয়েকটি আসার দেখুন-
১।
عن قتادة ان انس ابن مالك كان يعق عن بنيه الجزور (معجم الكبير:৬৮৫)
হযরত আনাস রা. উট জবেহ করে সন্তানদের আকীকা দিয়েছেন।
আল্লামা হাইছামী রহ. বলেন, উক্ত সনদে সকল বর্ণনাকারী সহীহ। (মাজমাউজজাওয়ায়েদ:৪/৯৪)
২।
عن عطاء عن أم كرز و أبي كرز قالا : نذرت امرأة من آل عبد الرحمن بن أبي بكر إن ولدت امرأة عبد الرحمن نحرنا جزورا فقالت عائشة رضي الله عنها : لا بل السنة أفضل عن الغلام شاتان مكافئتنان و عن الجارية شاة تقطع جدولا و لا يكسر لها عظم فيأكل و يطعم و يتصدق و ليكن ذاك يوم السابع فإن لم يكن ففي أربعة عشر فإن لم يكن ففي إحدى و عشرين (المستدرك: ২৩৮/৪، رقم: ৭৫৯৫)
অর্থ- হযরত আবু কুরযা বলেন, আব্দুর রহমান ইবনে আবু বকরের পরিবারস্থ এক মহিলা এই মান্নত করল যে, যদি আব্দুর রহমানের স্ত্রী সন্তান প্রসব করে তাহলে আমরা উট জবেহ করে আকীকা করব। একথা শুনে হযরত আয়েশা রা. বলেন- না, (উট দিয়ে নয়) বরং উত্তম হলো ছেলের জন্য দুটি, আর মেয়ের জন্য একটি বকরী জবেহ দেয়া।
বি.দ্র. উক্ত হাদীছে আম্মাজান রা. উটের কথা শুনে না করার অর্থ হচ্ছে এটাকে উত্তম পরিপন্থি বলা। উট দিয়ে আকীকা করলে আকীকার সুন্নাত আদায় হবে না একথা বলা নয়। অন্যথায় রাসূল সা. এর উপরোক্ত হাদীসের সাথে সাংঘর্ষিক দেখা দিবে, আর এটাই সকল মাযহাবের ইমামগণের ফাতাওয়া। সুতরাং প্রমাণ হলো আকীকা শুধু বকরী দিয়ে নয় বরং কুরবানী করা বৈধ এমন সকল জন্তু- উট, গরু, মহিষ, ভেড়া, বকরী, দুম্বার যেকোন একটি দিয়ে আকীকা করা জায়েয।

তৃতীয়ত:
আকীকা ও কুরবানী একই জন্তুতে কারা যায় কি-না?
আকীকা ও কুরবানী একই সাথে একই পশুতে দিলে আদাই না হওয়ার উল্লেখযোগ্য কোন কারণ নেই। তবে একই সাথে দেওয়ার ব্যাপারে স্পষ্ট কোনো হাদীস না থাকায় শরীকদারদের মাকসাদ ও উদ্দেশ্যের প্রতি লক্ষ রেখে জমহুর ফুকাহা ও মুহাক্কিক উলামায়ে কেরামের ফাতাওয়া হলো একই পশুতে কুরবানী ও আকীকা আদায় হবে। কারণ শরীকানা কুরবানী সহীহ হওয়ার জন্য শর্ত হলো সকল শরীকদারদের নিয়্যত শুধু এক আল্লাহর সন্তুষ্টি হওয়া। আর উভয় আমল হতে হবে ”কুরবত” সাওয়াবের উদ্দেশ্যে আল্লাহর সন্তুষ্টি চিত্তে করা। যদিও উভয়ের ধরন ভিন্ন, তবে মাকাসাদ ও উদ্দেশ্য এক। তাই আকীকা ও কুরবানী একসাথে সহীহ বলে গণ্য হবে, তবে পৃথক পৃথক হওয়া ও আকীকা বকরী দিয়ে করাই ভালো।
সারকথা, আকীকা আল্লাহর সন্তুষ্টি কামনায় হালাল জন্তুর রক্ত প্রবাহের নাম। পর্যায়ক্রমে ৭,১৪,২১ তম দিলে করা অতি উত্তম বা উত্তম। এর পরে করলেও আকীকার সুন্নাত আদায় হবে। বকরী দ্বারা করা উত্তম তবে উট,গরু এ জাতীয় পশু দ্বারা করলেও মূল আকীকার সুন্নাত আদায় হবে। পৃথকভাবে বকরী দিয়ে করা উত্তম কিন্তু কুরবানীর সাথেও আদায় হবে। কারণ উভয় আমলের মাহাত্ম হচ্ছে “কুরবত” আল্লাহর সন্তুষ্টি। এটাই মুজতাহিদ ইমামগণের ফাতাওয়া ও সিদ্ধান্ত। আমরা সবাই মুকাল্লিদ আমাদের কাজ ইমামের অনুসরণে কুরআন সুন্নাহ মান্য করে চলা, আমাদের চেয়ে অনেক বেশী শরীয়ত বুঝতেন মাযহাবের ইমামগণ, তাদেরকে ডিঙ্গিয়ে অতি মাত্রায় জ্ঞানী হওয়ার দাবী করাই বোকামী ও ফিতনার কারণ। আল্লাহ সকলকে দ্বীনের সঠিক বুঝ দান করুন। আমীন ॥

الادلة الشرعية
سنن ابى داود:৩/১২২৯، رقم:২৮৪২
عَنْ عَمْرِو بْنِ شُعَيْبٍ عَنْ أَبِيهِ أُرَاهُ عَنْ جَدِّهِ قَالَ سُئِلَ رَسُولُ اللَّهِ -صلى الله عليه وسلم- عَنِ الْعَقِيقَةِ فَقَالَ ্র لاَ يُحِبُّ اللَّهُ الْعُقُوقَ. كَأَنَّهُ كَرِهَ الاِسْمَ وَقَالَ ্র مَنْ وُلِدَ لَهُ وَلَدٌ فَأَحَبَّ أَنْ يَنْسُكَ عَنْهُ فَلْيَنْسُكْ عَنِ الْغُلاَمِ شَاتَانِ مُكَافِئَتَانِ وَعَنِ الْجَارِيَةِ شَاةٌ

فتح البارى:১১/৯
وَاسْتَدَلَّ بِإِطْلَاقِ الشَّاة وَالشَّاتَيْنِ عَلَى أَنَّهُ لَا يُشْتَرَط فِي الْعَقِيقَة مَا يُشْتَرَط فِي الْأُضْحِيَّة ، وَفِيهِ وَجْهَانِ لِلشَّافِعِيَّةِ ، وَأَصَحّهمَا يُشْتَرَط وَهُوَ بِالْقِيَاسِ لَا بِالْخَبَرِ ، وَيُذْكَر الشَّاة وَالْكَبْش عَلَى أَنَّهُ يَتَعَيَّن الْغَنَم لِلْعَقِيقَةِ ، وَبِهِ تَرْجَمَ أَبُو الشَّيْخ الْأَصْبِهَانِي وَنَقَلَهُ اِبْن الْمُنْذِر عَنْ حَفْصَة بِنْت عَبْد الرَّحْمَن بْن أَبِي بَكْر ، وَقَالَ الْبَنْدَنِيجِيُّ مِنْ الشَّافِعِيَّة : لَا نَصَّ لِلشَّافِعِيِّ فِي ذَلِكَ ، وَعِنْدِي أَنَّهُ لَا يُجْزِئُ غَيْرهَا ، وَالْجُمْهُور عَلَى إِجْزَاء الْإِبِل وَالْبَقَر أَيْضًا ، وَفِيهِ حَدِيث عِنْد الطَّبَرَانِيّ وَأَبِي الشَّيْخ عَنْ أَنَس رَفَعَهُ ” يَعُقّ عَنْهُ مِنْ الْإِبِل وَالْبَقَر وَالْغَنَم ” وَنَصَّ أَحْمَد عَلَى اِشْتِرَاط كَامِلَة ، وَذَكَرَ الرَّافِعِيّ بَحْثًا أَنَّهَا تَتَأَدَّى بِالسَّبْعِ كَمَا فِي الْأُضْحِيَّة وَاللَّهُ أَعْلَم .

الفقه الاسلامى وادلته:৪/২৭৪৮، مكتبة رشيديه
تذبح يوم سابع ولادة المولود، ويحسب يوم الولادة من السبعة. فإن ولدت ليلاً، حسب اليوم الذي يليه. وعند المالكية: يحسب يوم الولادة إن ولد قبل الفجر أو معه، ولا يعد اليوم الذي ولد فيه، إن ولد بعد الفجر. وقيل عندهم: يحسب إن ولد قبل الزوال لا بعده. ويندب الذبح ضحى إلى الزوال لا ليلاً. وصرح الشافعية والحنابلة: أنه لو ذبح قبل السابع أو بعده، أجزأه. وأضاف الحنابلة والمالكية: لا يعق غير الأب، ولا يعق المولود عن نفسه إذا كبر، لأنها مشروعة في حق الأب، فلا يفعلها غيره. واختار جماعة من الحنابلة: أن للشخص أن يعق عن نفسه استحباباً. ولا تختص العقيقة بالصغر، فيعق الأب عن المولود، ولو بعد بلوغه؛ لأنه لا آخر لوقتها

فقه السنة:৩-১/১০০৬ دار الحديث
والذبح يكون يوم السابع بعد الولادة إن تيسر، وإلا ففي اليوم الرابع عشر وإلا ففي اليوم الواحد والعشرين من يوم ولادته، فإن لم يتيسر ففي أي يوم من الايام. ففي حديث البيهقي: تذبح لسبع، ولاربع عشر، ولاحدي وعشرين.

بدائع الصنائع:৫/৩০৮ زكريا،
وَلَنَا أَنَّ الْقُرْبَةَ في إرَاقَةِ الدَّمِ وإنها لَا تَتَجَزَّأُ لِأَنَّهَا ذَبْحٌ وَاحِدٌ فَإِنْ لم يَقَعْ قُرْبَةً من الْبَعْضِ لَا يَقَعُ قُرْبَةً من الْبَاقِينَ ضَرُورَةَ عَدَمِ التَّجَزُّؤِ وَلَوْ أَرَادُوا الْقُرْبَةَ الْأُضْحِيَّةَ أو غَيْرَهَا من الْقُرَبِ أَجْزَأَهُمْ سَوَاءٌ كانت الْقُرْبَةُ وَاجِبَةً أو تَطَوُّعًا أو وَجَبَتْ على الْبَعْضِ دُونَ الْبَعْضِ وَسَوَاءٌ اتَّفَقَتْ جِهَاتُ الْقُرْبَةِ أو اخْتَلَفَتْ… وَلَنَا أَنَّ الْجِهَاتِ وَإِنْ اخْتَلَفَتْ صُورَةً فَهِيَ في الْمَعْنَى وَاحِدٌ لِأَنَّ الْمَقْصُودَ من الْكُلِّ التَّقَرُّبُ إلَى اللَّهِ عز شَأْنُهُ وَكَذَلِكَ إنْ أَرَادَ بَعْضُهُمْ الْعَقِيقَةَ عن وَلَدٍ وُلِدَ له من قَبْلُ لِأَنَّ ذلك جِهَةُ التَّقَرُّبِ إلَى اللَّهِ تَعَالَى عز شَأْنُهُ بِالشُّكْرِ على ما أَنْعَمَ عليه

البحر الرائق:৯/৩২৪ زكريا
يجوز بالجاموس لانه نوع من البقر… لان جوازها عرف بالشرع… الخ
والله اعلم بالصواب

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

January 2020
S S M T W T F
« Dec    
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031
shares